শিরোনাম :
স্বাধীনতার ৫০ বছরে গড়ে ওঠেনি দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে একটি উন্নতমানের হাসপাতাল বেনাপোলে ভারতীয় গাঁজাসহ গ্রেফতার ১ বেনাপোল বন্দরে আটকে আছে শত শত পণ্য বোঝাই ট্রাক, যানজটে নাকাল পাসপোর্ট যাত্রীরা জনগণকে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হবার আহবান প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে কারিগরি শিক্ষকদের বেনাপোল স্থলবন্দরে সন্ধ্যার পর পচনশীল পণ্যের শুল্কায়ন বন্ধ শার্শায় চলছে স্কুলের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ : শিক্ষার্থীদের মাঝে আনন্দ যশোরের নাভারণ ক্লিনিক থেকে ২ দিনের শিশু চুরি প্রেসক্লাব অব ইন্ডিয়ায় ‘বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার’ উদ্বোধন করলেন তথ্যমন্ত্রী কোভিড-১৯ এর ২য় ডোজ গণটিকা দান কর্মসূচি শুরু

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাবেক জেল সুপার চলচ্চিত্র প্রযোজক ফরমান আলীর পোস্ট

রির্পোটিং আহমেদ সাব্বির রোমিও : ঘটনা কি আর আমরা ও মিডিয়া মাতামাতি করছি সাবজেক্ট ছেড়ে অবজেক্ট নিয়ে’- সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমন মন্তব্য লিখেছেন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সাবেক সিনিয়র জেল সুপার ও প্রযোজক ফরমান আলী। একইসঙ্গে ঘটনা প্রবাহে ইন্ডাস্ট্রির অবস্থান, গণমাধ্যম এবং সামাজিক মাধ্যমগুলোর ভূমিকার নিয়ে গভীর পর্যালোচনা লিখেছেন তিনি।
পাঠকদের জন্য বিস্তারিত লেখাটি তুলে ধরা হলো :

কৈফিয়ত ঃ অনিচ্ছাকৃত কারনে লেখাটা একটু লম্বা হয়েছে,মার্জনীয়।

সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনার প্রেক্ষিতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মহোদয়ের দেয়া সাম্প্রতিক সাংবাদিক সাক্ষাৎকার ও ঘটনা প্রবাহ নিয়ে ভাবছিলাম।ঘটনা কি আর আমরা ও মিডিয়া মাতামাতি করছি সাবজেক্ট ছেড়ে অবজেক্ট নিয়ে! ভাবনায় ছেদ পড়লো।
সেজ ফিয়াসে আবার একটু সংগীত প্রিয়।হঠাৎ লাউড ভলিউমে শুনতে পেলাম ” চোলিকে পিছে কেয়া হ্যায়” গানটি। এক সময় আবাল বৃদ্ধবনিতার ফেভারিট গান ছিল।সে সাথে মাধুরি। ১৯৯৩ সাল খল নায়ক (হিন্দি) ছবি রিলিজ দুনিয়া ব্যপি সুপার ডুপার হিট। সঞ্জয় দত্ত,মাধুরি দিক্ষীত,জ্যাকি স্রফ সে এক এলাহি কান্ড!
সঞ্জয় দত্ত খল নায়ক।

সঞ্জয় দত্ত -জন্ম ২৯ জুলাই ১৯৫৯। খ্যাতিমান সুনীল দত্ত ও নার্গিস জুটির একমাত্র ছেলে। স্কুল জীবন থেকে বখে যাওয়া এক আলালের ঘরের দুলাল।নানাবিধ নেশায় আশক্ত।বাবা সুনীল দত্ত ছেলেকে নামিয়ে দিলেন সিনেমায়, নিজে পরিচালক। সঞ্জয় দত্তের ডেবু ছবি রকি সুপার ডুপার হিট। কিন্ত ঐ যে সর্বনাশা নেশা!
অবস্থা এতই বেগতিক মোজায় করে কোকেন নিয়ে যেতেন সেটে,বাকিটা..
সোজা আমেরিকার একটি রিহাব সেন্টারে। সেখানে এক বছর।এক বছরে সঞ্জয় দত্ত নিজকে সুধরে নিয়েছেন।এক ব্যবসায়ীর সাথে পরিচয় সূত্রে ব্যবসা শুরু করবেন ও আমেরিকায় থেকে যাবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।সুনীল দত্ত ছেলেকে বোম্বে এনে আবার ছবিতে নামিয়ে দিলেন।ক্যাম ব্যাক সুবিধার হলো না।পর পর দুটি ছবি ফ্লপ। পরিচাল মহেশ ভাট ঐ সময় কতেকটা বেকার।তাঁর ছবিতে সঞ্জয় দত্তকে কাস্ট করলেন। “নাম” ছবিটি মুক্তি পেলো ১৯৮৬ তে। সুপার ডুপার হিট। ১৯৮৬ থেকে ১৯৯৩ এর মাঝে এক মারাত্মক ভুল করে বসেছেন সঞ্জয় দত্ত। মুম্বাই বোমা হামলায় সম্পৃক্ত আন্ডার ওয়ার্ল্ডের কাছ থকে কিনেছিলেন একে ৪৭ রাইফেল।
ফেসে গেলপন সঞ্জয় দত্ত। আদালতে বল্লেন পরিবারের ব্যক্তিগত নিরাপত্তার জন্য তিনি এটা কিনেছেন।ধোপে টিকলো না।সে সময় তার কাছে তিনটি অস্ত্রের লাইসেন্স ছিলো।
চাঞ্চল্যকর “টাডা” মামলায় ১৯৯৩ এপ্রিলে জেলে যেতে হলো সঞ্জয়কে।কিছুদিন পর প্যারোলে মুক্ত হয়ে স্হায়ী জামিন পেলেন ও অভিনয়ে মনযোগ দিলেন। এ মামলার রায়ের জন্য সন্জুকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ২০ বছর।তার মুক্তিপ্রান্ত মোট ১৮৭ টি ছবির মধ্যে অধিকাংশ ছবিই নির্মিত হয়েছে এই ২০ বছরে । ভয়ংকর মুম্বাই বোমা হামলা ” টাডা” মামলায় জডানোর কারনে কি বলিউড সন্জুকে বয়কট করেছিলো না ডাস্টবিনে নিক্ষেপ করেছিলো?
না তা করে নাই বরং একজন পরীক্ষিত অভিনেতাকে কাজে লাগিয়েছিলো। সঞ্জয় দত্ত বে আইনি কর্মকান্ড বা পাপাচারে জড়িয়ে থাকলে তার সাজা বা প্রায়শ্চিত্ত সঞ্জুকেই করতে হবে অন্য কাউকে নয়।
এ মালায় বিজ্ঞ আাদালত সঞ্জয় দত্তকে ৬ বছর সশ্রম সাজা প্রদান করে। কারাগারে ভালো কাজ ও আচরনের জন্য তার তিন বছর সাজা মোওকুফ করে সরকার।কারাগারে সঞ্জয়দত্ত ঠোংগা বানানোর কাজ করতেন। ১৯১৬ খ্রিস্টাব্দ দাগী আসামী হিসেবে সাজা খেটে জেল থেকে বেরুনোর পর উপহার দিয়েছেন মুন্না ভাই সেকুয়েল,ভুমি, কে জি এফ এর মত ছবি। বলিউড জিন্দাবাদ।
আর আমরা? সামপ্রতিক সময়ে ঢালিউডের একজন অভিনেত্রীকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী গ্রফতার করেছে ও তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত করছে।তার কর্মকান্ড,ক্রটি বিচ্যুতি বে আইনি প্রমানিত হলে তার সাজা তাকেই ভোগ করতে হবে। আশ্চর্যের বিষয় এ বিষয়ে তার সমগোত্রীয় বা সহকর্মীরা কেউ তেমন কিছু বল্লেন না। গ্রফতারকৃত অভিনেত্রী যদি অন্যায় করে থাকেন তবে বিজ্ঞ আদালত যে শাশ্তি দিবেন সে সাজা তিনি ভোগ করবেন সন্দেহ নেই।তবে,নিরপেক্ষ ও সঠিক তদন্ত হোক, গ্রেফতারকৃত যেন অন্যায় বা শ্রেনী বৈশম্যের স্বীকার না হন ও আমরা সুষ্ঠ বিচার চাই এ দাবীটুকু তারা করতে পারতেন। হায় ঢালিউড তোমায় নমস্কার ।
সমগোত্রীয় বা সহকর্মীদের নিরবতার সুযোগে নানান চটকদার বাজার কাটতি নিউজে ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে জনগন খুবই নেতিবাচক ধারনা পোষণ করছে যা খুবই দুঃখজনক।
আল্লাহ্ সবার মঙ্গল করুন।

চ্যানেল বাংলা লাইভ টিভি

শিঘ্রই আসছে নতুন রুপে নিয়োগপত্র

A House of M.R.Multi-Media Ltd
Design & Development By ThemesBazar.Com