রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞাপন :
** জরুরী ভিত্তিতে জমি বিক্রয় হইবে । ** জরুরী ভিত্তিতে জমি বিক্রয় হইবে । ** জরুরী ভিত্তিতে জমি বিক্রয় হইবে । ** জাতীয় দৈনিক বর্তমান খবরে সংবাদ কর্মী/প্রতিনিধি আবশ্যক । যোগাযোগ : 01714925606 , ইমেইল : bartomankhobor@gmail.com ওয়েব : www.bartomankhobor.com.
সংবাদ শিরোনাম :
স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে মধ্যরাতে অসহায় ভাসমান মানুষের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ আওয়ামী লীগের পদ হারানো হেলেনা জাহাঙ্গীর এর সাথে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ছবি ভাইরাল, লকডাউনে ব্যাংকিং কার্যক্রম সাড়ে তিন ঘণ্টা চলবে অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের আলোচিত স্ত্রী তামিমার ছবি দিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন তিন ফরম্যাটেই শততম ম্যাচে জয় পেল বাংলাদেশ সাংবাদিকদের লেখনির মাধ্যমে সমাজকে উজ্জীবিত করতে পারেন,তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী পর্ন ছবি তৈরিতে গহনা বশিষ্ঠ নতুন অভিনেতা,অভিনেত্রীদের টার্গেট করতো কাল থেকে শুরু কঠোর লকডাউন’, খুলছে না গার্মেন্টস-কারখানা ঈদ উপহার পেয়ে খুশিতে কাঁদলেন চঞ্চল চৌধুরী হাসপাতালে ডেঙ্গুরোগী ভর্তির সংখ্যা গত ২৪ ঘন্টায় ৪০২

বাংলাদেশ ৩৩ রানে জয়ী ম্যাচসেরা মুশফিকুর রহিম

রির্পোটিং প্রতিবেদন : সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতেই করোনার ধাক্কা সফরকারী শ্রীলঙ্কা দলে। দুই ক্রিকেটার- ইসুরু উদানা, শিরান ফার্নান্দো ও বোলিং কোচ চামিন্দা ভাস করোনা পজিটিভ হওয়ায় ম্যাচ হওয়া নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। তবে শেষ পর্যন্ত দুজন করোনা নেগেটিভ হওয়ায় ম্যাচটি সময়মতোই মাঠে গড়ায়। রবিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ৩৩ রানের জয় দিয়ে শুরু করেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ঘরের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বশেষ ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে জিতেছিল টাইগাররা। মিরপুরে সেই ম্যাচে ১৬৩ রানে জয়ের পর পরস্পরের ৬ বার সাক্ষাতে ৫ বারই হারে বাংলাদেশ। মাঝে একবার ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে দুবাইয়ে ১৩৭ রানে জয় এসেছে। সেই ম্যাচটির পরও হারতে হয়েছে ৩ ওয়ানডে। অবশেষে আবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিতল বাংলাদেশ মূলত মেহেদী হাসান মিরাজের ধ্বংসাত্মক অফস্পিনে। অধিনায়ক তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অর্ধশতকে প্রথমে ব্যাট করে ৬ উইকেটে ২৫৭ রান তোলে বাংলাদেশ। জবাবে মিরাজ ৩০ রানে ৪ উইকেট নিলে ৪৮.১ ওভারে ২২৪ রানেই গুটিয়ে যায় লঙ্কানদের ইনিংস। এর ফলে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ে শুরু হয় বাংলাদেশের। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে চরম বাজে ফর্মে থাকা লিটন দাসকে (০) প্রথম স্লিপে ধনঞ্জয়া ডি সিলভার ক্যাচে পরিণত করেন দুশমন্ত চামিরা। এর আগে প্রথম ওভারটি ম্যাচ শুরুর ঘণ্টা দুয়েক আগে করোনা নেগেটিভ হওয়া উদানাই শুরু করেছিলেন। লিটন বিদায় নেয়ার পর আবার তিনে ফেরা সাকিব আল হাসান ওপেনার তামিমের সঙ্গে ৩৮ রানের জুটি গড়েন। তেমন স্বাচ্ছন্দ্য বোধ না করা সাকিব ৩৪ বলে ১৫ রানে দানুশকা গুনাথিলাকার অফস্পিনে সাজঘরে ফেরেন লংঅনে ক্যাচ দিয়ে। তৃতীয় উইকেটে মুশফিকের সঙ্গে তামিম আরও ৫৬ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক বিপদ কাটান। তবে ক্যারিয়ারের ৫১তম অর্ধশতক হাঁকিয়ে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৪ হাজার রান পেরিয়ে যাওয়া তামিম ধনঞ্জয়ার অফস্পিনে সাজঘরে ফেরেন। তিনি ৭০ বলে ৬ চার, ১ ছক্কায় ৫২ রান করেন। পরের বলেই আবার মোহাম্মদ মিঠুনকে শিকার করেন তিনি। টানা দুই এলবিডব্লিউয়ে বাংলাদেশকে আবার বিপদে ফেলেন ধনঞ্জয়া। ২৩ ওভারে ৪ উইকেটে ৯৯ রান নিয়ে বিপর্যস্ত বাংলাদেশকে মাত্র ১২১ বলে ১০৯ রানের জুটি গড়ে রক্ষা করেন মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। দেশের মাটিতে এটি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পঞ্চম উইকেটে বাংলাদেশের সেরা জুটি। এ জুটিতে লড়াকু পুঁজি পেয়ে যায় বাংলাদেশ।

মুশফিক ক্যারিয়ারের ৪০তম অর্ধশতক পান মাত্র ৫২ বলে। অষ্টম সেঞ্চুরির পথে এগোতে থাকা মুশফিককে ৮৭ বলে ৪ চার, ১ ছক্কায় ৮৪ রান করার পর থামিয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার লক্ষণ সান্দাকান। কিছুটা ধীরস্থির মাহমুদুল্লাহ ২৪তম ফিফটি পান ৬৯ বলে। তিনিও ৭৬ বলে ২ চার, ১ ছক্কায় ৫৪ রান করে ধনঞ্জয়ার তৃতীয় শিকার হন। শেষদিকে আফিফ হোসেন ধ্রুব ২২ বলে ৩ চারে ২৭ রানে অপরাজিত থাকলে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৫৭ রানের লড়াকু পুঁজি পায় বাংলাদেশ। ঘরের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৮তম ওয়ানডে খেলতে নেমে তৃতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। ২০১৮ সালের ১৯ জানুয়ারিতে মিরপুরে লঙ্কানদের বিপক্ষে ঘরের মাটিতে সর্বাধিক ৭ উইকেটে ৩২০ এবং ২০১০ সালের ৪ জানুয়ারি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭ উইকেটে ২৬০ রান করে বাংলাদেশ। ধনঞ্জয়া নেন ৪৫ রানে ৩ উইকেট। জবাব দিতে নেমে প্রথম ওভার থেকেই মিরাজের অফস্পিনের সামনে অস্বস্তিতে পড়ে লঙ্কান ওপেনাররা। প্রথম দুই ওভারে ৪ রান খরচা করা মিরাজ নিজের তৃতীয় ও দলীয় পঞ্চম ওভারেই আঘাত হানেন। ২১ রান করা গুনাথিলাকাকে কট এ্যান্ড বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান তিনি। অষ্টম ওভারে বোলিংয়ে এসেই পাথুম নিশঙ্কাকে (৮) তুলে নেন বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। পাওয়ার প্লে’র ১০ ওভারে ২ উইকেটে ৪৯ রান তোলে লঙ্কানরা। ৪ ওভারে ১১ রানে ১ উইকেট নিয়ে প্রথম স্পেল শেষ করেন মিরাজ।

এরপর ১৯তম ওভারের প্রথম বলেই সাকিব কুশল মেন্ডিসকে (৩৬ বলে ২৪) আউট করে আব্দুর রাজ্জাকের পর দ্বিতীয় বাংলাদেশী হিসেবে তিন ফরমেটের স্বীকৃত ক্রিকেট মিলিয়ে ১০০০ উইকেটের মালিক হয়ে যান। ৩ ওভার পরেই কুশল পেরেরাকে (৩০) বোল্ড করে দেন মিরাজ। স্বল্প সময়ের মধ্যেই আবার ধনঞ্জয়াকে (৯) ও আশেন বান্দারাকে (৩) বোল্ড করে দেন মিরাজ। তার ঘূর্ণিতে দিশেহারা হয়ে মাঝের ৯.৩ ওভারে মাত্র ২০ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে লঙ্কানরা। দ্বিতীয় স্পেলে মিরাজ ৪ ওভারে ১৯ রান দিয়ে নেন আরও ৩ উইকেট। কিন্তু এরপর দাসুন শানাকাকে নিয়ে সপ্তম উইকেটে মাত্র ৪০ বলে ৪৭ ও ইসুরু উদানাকে নিয়ে অষ্টম উইকেটে ৫৯ বলে ৬২ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশকে পরাজয়ের শঙ্কায় ফেলেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। মারকুটে ব্যাটিংয়ে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় অর্ধশতক পেয়ে যান হাসারাঙ্গা মাত্র ৩১ বলে। ৪৪তম ওভারে বিধ্বংসী হাসারাঙ্গাকে শিকার করে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরান সাইফউদ্দিন। ৬০ বলে ৩ চার, ৫ ছক্কায় ৭৪ রান করেন তিনি। পরের ওভারের প্রথম বলেই মুস্তাফিজ তুলে নেন ২৩ বলে ২১ রান করা উদানাকে। তিনিই পরে ৪৯তম ওভারের প্রথম বলেই চামিরাকে সাজঘরে ফেরালে ২২৪ রানে থামে শ্রীলঙ্কার ইনিংস। ৩৩ রানে জয় পায় বাংলাদেশ। মিরাজ ৪, মুস্তাফিজ ৩ ও সাইফউদ্দিন ২ উইকেট নেন।

স্কোর ॥ বাংলাদেশ ইনিংস- ২৫৭/৬; ৫০ ওভার (মুশফিক ৮৪, মাহমুদুল্লাহ ৫৪, তামিম ৫২, আফিফ ২৭*, সাকিব ১৫, সাইফউদ্দিন ১৩*, লিটন ০, মিঠুন ০, অতিরিক্ত ১২; ধনঞ্জয়া ৩/৪৫, গুনাথিলাকা ১/৫)।

শ্রীলঙ্কা ইনিংস- ২২৪/১০; ৪৮.১ ওভার (হাসারাঙ্গা ৭৪, পেরেরা ৩০, মেন্ডিস ২৪, গুনাথিলাকা ২১, উদানা ২১; মিরাজ ৪/৩০, মুস্তাফিজ ৩/৩৪, সাইফউদ্দিন ২/৪৯, সাকিব ১/৪৪)।

ফল ॥ বাংলাদেশ ৩৩ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা ॥ মুশফিকুর রহিম।

সিরিজ॥ ৩ ম্যাচের সিরিজে বাংলাদেশ ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে।

অনুগ্রহ করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল বাংলা লাইভ টেলিভিশন



Our Visitor

0 0 1 0 3 0
Total Users : 1030
Total views : 3596



spicebaker মানেই স্বাস্থ্য সম্মত খাবার

সাশ্রয়ী মূল্যে ঘরোয়া পরিবেশে স্বাস্থ্য সম্মত খাবারের নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান। হোম ডেলিভারির সু-ব্যবস্থাও আছে।

© All rights reserved © 2020  reportingbd.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com