মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০৭:১৬ অপরাহ্ন

বিজ্ঞাপন :
** জরুরী ভিত্তিতে জমি বিক্রয় হইবে । ** জরুরী ভিত্তিতে জমি বিক্রয় হইবে । ** জরুরী ভিত্তিতে জমি বিক্রয় হইবে । ** জাতীয় দৈনিক বর্তমান খবরে সংবাদ কর্মী/প্রতিনিধি আবশ্যক । যোগাযোগ : 01714925606 , ইমেইল : bartomankhobor@gmail.com ওয়েব : www.bartomankhobor.com.

বরিশালবাসী অতিষ্ঠ

বরিশাল প্রতিনিধি  : করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ভয়াবহতা, চলমান কঠোর লকডাউন, ডায়রিয়া প্রকোপ আকারে ধারণ করা ও নিত্যপণ্যের দাম ঊর্ধ্বগতিতে চতুরমুখী চাঁপে দিশেহারা হয়ে পরেছেন বরিশালের সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত ও দিনমজুর পরিবারের স্বাভাবিক জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।

সূত্রমতে, মহামারী করোনা প্রতিরোধে যখন স্বাস্থ্য বিভাগ হিমশিম খাচ্ছে, তখন উপায়অন্তুর না পেয়ে জনসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গত ১৪ এপ্রিল থেকে দেশে লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। করোনার মধ্যেই বরিশালে অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ। গত কয়েকদিনে জেলায় শত শত মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। হঠাৎ করে ডায়রিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধির ফলে চিকিৎসা সেবা দিতে বেগ পেতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। জেলায় সবচেয়ে বেশি ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে বাকেরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইতোমধ্যে বাকেরগঞ্জ উপজেলায় ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। বরিশাল সদর জেনারেল হাসপাতালে আসন সংখ্যা সীমিত থাকার ফলে খোলা মাঠে তাবু টাঙ্গিয়ে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। অপরদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় কঠোর লকডাউনের কারণে দিনমজুর ও মধ্যবিত্ত পরিবারের গৃহকর্তারা বেকার হয়ে পরেছে। একদিকে করোনার প্রকোপ ও লকডাউনে কর্মহীন মানুষ অন্যদিকে ডায়রিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধির মধ্যেই রমজানকে পুঁজি করে বরিশালে লাগামহীন নিত্যপণ্যের বাজার। লকডাউনের কারণে খেটে খাওয়া মানুষগুলো কর্মহীন হয়ে ঘরে রয়েছে, অন্যদিকে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে নিত্যপন্য। অতিরিক্ত দামে জনসাধারণকে ক্রয় করতে হচ্ছে দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় সকল জিনিসপত্র।

সোমবার সকালে কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, গত এক সপ্তাহ আগেও যে সবজি বিক্রি হয়েছে ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে তা এখন বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজিতে। কয়েকদিন আগেও যে লেবু বিক্রি হয়েছে ১০ থেকে ১৫ টাকা হালি তা এখন বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা হালি। মাছ ও মাংসের দামও বেড়েছে প্রতি কেজিতে ৫০ থেকে ১০০টাকা। লেয়ার মুরগী ২৮০ টাকা, গরুর মাংস ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা ও খাসির মাংস ৯০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীদের দাবি, লকডাউনের কারণে এসব পন্যের দাম মোকামে বৃদ্ধি পাওয়ায় খুচরা বাজারে দামের প্রভাব পরেছে। তবে সুশীল সমাজের দাবি, রমজান মাস ও লকডাউনকে পুঁজি করে অধিক মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা নিত্যপন্যের দাম বৃদ্ধি করেছেন।

বরিশালে হঠাৎ ডায়রিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ার বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মনোয়ার হোসেন

রির্পোটিংকে বলেন, যদি কোন মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হন, তাহলে তার ডায়রিয়া হতে পারে। কারণ করোনার যতগুলো লক্ষণ রয়েছে ডায়রিয়া তার মধ্যে অন্যতম। তবে ডায়রিয়া প্রতিরোধে আমরা জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনা করেছি। ইতোমধ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে সাড়াও পেয়েছি। অনেক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে খাবার স্যালাইন সরবরাহ করেছে।

সির্ভিল সার্জন আরও বলেন, শুধু করোনার কারণেই ডায়রিয়া হবে বিষয়টি এমন নয়; বিভিন্ন কারণেও ডায়রিয়া হতে পারে। অতিরিক্ত গরমে বাঁশি পচা খাবার খেলে, টিউবওয়েলের পানি পান না করলে, পুকুর অথবা নদীর পানি ফুটিয়ে পান না করাসহ খাবার ঢেকে না রাখলেও ডায়রিয়া হতে পারে। তাই সবাইকে মহামারী করোনা ভাইরাস ও ডায়রিয়া প্রতিরোধে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য তিনি (সির্ভিল সার্জন) অনুরোধ করেন।

সচেতন বরিশালবাসীর মতে, করোনা ভাইরাস ও ডায়রিয়ারোগে আক্রান্ত না হওয়া পর্যন্ত সেটা দেখা যায়না তাই হয়তো নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছেনা। কিন্তু নিত্যপণ্যের দাম যেভাবে দিন দিন বেড়েই চলেছে সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে, সেটাতো দেখা যায়। তাছাড়া রমজান মাস আসলেই হু হু করে পণ্যের দাম বেড়ে যায় কেন। লকডাউনের কারণে মানুষ যখন কর্মহীন হয়ে পরেছে ঠিক এই মূহুর্তে নিত্যপণ্যের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাওয়ায় খেটে খাওয়া মানুষকে না খেয়ে মরতে হবে। তাই যথাযথভাবে বাজার মনিটরিং করে জনসাধারণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রাখতে সচেতন বরিশালবাসী প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অনুগ্রহ করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চ্যানেল বাংলা লাইভ টেলিভিশন






” />

© All rights reserved © 2020  reportingbd.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com